পনারা সবাই জানেন কানাডা এতোবড়ো একটা দেশ যাকে মহাদেশ বললেও ভুল হবেনা। আর এতোবড়ো দেশের লোকসংখ্যা মাত্র তিন কোটি ছত্রিশ লাখ ২০১৬ এর আদমশুমারী মতে। বাংলাদেশর ১৯ কোটি জনসংখ্যা যদি কানাডার ভেতর ১০ গুন করে ভরা হয় তারপরও কানাডার একেকটা প্রদেশ ভরতে পারবেন না। তাই কানাডার মূল লক্ষ্য হলো এর জনসংখ্যা বাড়ানো যাতে করে তাদের জনশক্তি বাড়ে। তাই তারা চায় বিদেশ থেকে দক্ষ জনবল বিভিন্ন মাধ্যমে দেশে আনা। যারা অদক্ষ তাদের আসা বন্ধ করা। যেমন ধরুন স্টুডেন্ট ভিসার কথাই ধরা যাক। কানাডা চায় মেধাবীরা এদেশে আসুক যাতে তারা ভবিষ্যতে সেই দেশে উন্নতিতে তারা অবদান রাখতে পারে। এই চিন্তা করে তারা স্টুডেন্ট ভিসার ক্ষেত্রে মেধা যাচাই করে দুটো বিভাগে যে তার সিজিপিএ কতো এবং ইংরেজীতে তার দক্ষতা কেমন। IELTS  ছাড়াও আমাদের অনেক ভিসা হয়েছে, সেক্ষেত্রে তারা সিজিপিএ দেখে ভিসা দিয়েছে। এরপর তারা জুন মাস থেকে IELTS ছাড়া ফাইলগুলো পুরোপুরি রিজেক্ট করা শুরু করে। এই অবস্থা দেখে আমরাও আমাদের ডিসিশন পরিবর্তন করি। পুরাতন বিজ্ঞাপন পরিবর্তন করে IELTS সহ যেসব ফাইল আছে সেগুলো নিতে শুরু করি। সেজন্য অনেকেই আমাদের ভুল বুঝেছেন যে আমরা আগে বলেছি IELTS ছাড়া ভিসা হবে এবং পরে বলছি IELTS লাগবে। খেয়াল রাখবেন আমরা আমাদের সব পোস্টেই আপডেটেড তথ্য সরবরাহ করি। কাউকে ভুল তথ্য সরবরাহ করে আমাদের কোন লাভ নেই। আমরা মূলত ব্লগার ছিলাম। মানুষের উপকারের কথা মাথায় রেখে কাজ করতে গিয়ে আমরা দেখলাম আমাদের বাঁচতে হবে। তাই মেম্বারশিপ করে ৪০০ টাকা নেয়া শুরু করলাম। এই ৪০০ টাকা ছাড়া আমাদের আর কোন লাভ নেই। আপনার ভিসা হলে এজেন্টের লাভ, আপনার লাভ। আর এই ৪০০ টাকার বিনিময়ে আপনি পাচ্ছেন আমাদের তথ্য, ভিসা সেবা। আপনি মেম্বার হলে আমরা আপনার জন্য একজন সঠিক ভিসা এজেন্ট খুঁজে দেব। যাকে আমরা বলছি ভেরিফায়েড এজেন্ট। আমরা ভেরিফাই করার কেউ নই। ভেরিফাই করবে সরকার, আমরা জাস্ট দেখে নেই যে তারা সত্যিকার অর্থে ভেরিফায়েড কিনা, যেমন তাদের এমপি লাইসেন্স আছে কিনা, তাদের আপডেটেড ট্রেড লাইসেন্স আছে কিনা, তারা প্রতিবছর সরকারকে কর দিচ্ছে কিনা, তাদের নিজস্ব অফিস আছে কিনা এবং পরিশেষে তাদের ট্র্যাক রেকর্ড কেমন অর্থাৎ তাদের ভিসা রেশিও কেমন ও তাদের নামে কোন হুলিয়া আছে বা অভিযোগ আছে কিনা। এ পর্যন্ত আমরা সারা দেশের অগনিত সৎ যোগ্য ভিসা এজেন্ট পেয়েছি ও তাদের সাথে কাজ করেছি ও করছি। কানাডার স্টুডেন্ট ভিসার ক্ষেত্রেও তাই। এখন আর IELTS ছাড়া ভিসা হবেনা।দয়া করে IELTS ছাড়া ভিসার জন্য দাঁড়াবেন না। দ্রুত IELTS পরীক্ষা দিয়ে নিন। IELTS পরীক্ষা তেমন কঠিন কোন বিষয় নয়। পরীক্ষা দিলেই আপনি ৫.০ পাবেন। আর তাতেই চলবে। আপনার যদি ২০১৭-২০১৮ তে এইচএসসি থাকে তবে মার্কস যাই থাকুক আপনি IELTS পরীক্ষা দিয়ে নিন। ২০১৯ এর সেপ্টেম্বর ইনটেকের জন্য ফাইল দেবার উপযুক্ত সময় এই মে মাস। সেপ্টেম্বরের জন্য এ্যামবাসি ফেস করবেন জুলাই মাসে। IELTS থাকলে আপনার ভিসা অনেকটাই নিশ্চিত হবে। আপনি যদি ২০১৭-২০১৮ এর এইচএসসির পরীক্ষার্থী হয়ে থাকেন তবে কানাডার ভিসার জন্য আমাদের ফোন দিন। এবং ভিসা ক্লাবের মেম্বার হয়ে আবেদন করুন।ভিসা ক্লাবের মেম্বার হবার জন্য নিচের ডান দিকের বাটন ও আবেদন করার জন্য বাম দিকের বাটনটি চাপুন।